নাসা 2024 সালের মধ্যে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে প্রথম মানব বেস ক্যাম্প ‘আর্টেমিস’ স্থাপনের পরিকল্পনা করেছে

নাসা 2024 সালের মধ্যে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে প্রথম মানব বেস ক্যাম্প ‘আর্টেমিস’ স্থাপনের পরিকল্পনা করেছে

2024 সালের মধ্যে চাঁদে মানুষকে অবতরণ করার লক্ষ্য নিয়ে নাসা আর্টেমিস প্রোগ্রামে কাজ করছে। মহাকাশ সংস্থা একটি মার্কিন চন্দ্রের উপস্থিতি এই মাইলফলকের পরে কী হতে পারে তা দেখিয়ে একটি পরিকল্পনা পেশ করেছে।

নাসা ২ এপ্রিল জাতীয় মহাকাশ কাউন্সিলকে ১৩ পৃষ্ঠার একটি প্রতিবেদন জমা দেয়। জাতীয় স্পেস কাউন্সিল হ’ল মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপদেষ্টা মাইক পেন্সের সভাপতিত্বে একটি পরামর্শক দল।

টেকসই চান্দ্র অন্বেষণ ও বিকাশের জন্য নাসার পরিকল্পনার শিরোনামে প্রতিবেদনে স্পেস এজেন্সি কীভাবে ২০২৪ চাঁদের অবতরণ মিশনটি সম্পাদন করবে তার একটি সংক্ষিপ্তসার সরবরাহ করে।

এটি চাঁদ এবং চন্দ্র কক্ষপথে দীর্ঘমেয়াদী উপস্থিতি থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কী অর্জন করবে সে সম্পর্কেও তথ্য দেয়।

“আগামী কয়েক বছর ধরে, আর্টেমিস আমাদের নর্থ স্টার হিসাবে কাজ করবে কারণ আমরা চাঁদের আরও বৃহত্তর অনুসন্ধানের দিকে কাজ করে যাচ্ছি, যেখানে আমরা মঙ্গল গ্রহে প্রথম মানব মিশনের জন্য প্রয়োজনীয় মূল উপাদানগুলি প্রদর্শন করব,” নাসার প্রশাসক জিম ব্রাইডেনস্টাইন এক বিবৃতিতে বলেছিলেন।

প্রতিবেদনের কেন্দ্রবিন্দু হ’ল চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে আর্টেমিস বেস ক্যাম্প।

নাসা বলছে যে তারা চাঁদের ও তার আশপাশে অপারেশন করার পরিকল্পনা করেছে এবং এর জন্য তাদের আর্টেমিস বেস বেস ক্যাম্প প্রয়োজন, যা চন্দ্র সীমানায় তাদের প্রথম টেকসই পদক্ষেপ হবে।

প্রাথমিক পরিকল্পনাটি হল চাঁদ এবং মহাবিশ্ব সম্পর্কে আরও জানার জন্য এক থেকে দুই মাস পর্যবেক্ষণ করা।

নাসা দীর্ঘমেয়াদে বলেছে, বেস ক্যাম্পে বিদ্যুৎ, বর্জ্য নিষ্পত্তি ও যোগাযোগের জন্য রেডিয়েশন শিল্ডিং এবং ল্যান্ডিং প্যাডের পাশাপাশি পরিকাঠামো উন্নয়ন প্রয়োজন হবে।

বসে ক্যাম্পটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বকে মহাকাশে প্রদর্শন করবে এবং শেষ পর্যন্ত তাদের মঙ্গল গ্রহে মানবতার প্রথম মিশন চালিয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত করবে।

Spread the love

 

Related Post

Leave a Comment