উত্তরবঙ্গের বিখ্যাত শৈবতীর্থ জল্পেশ্বর ধাম

নিউ জলপাইগুড়ি থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ছোট একটি গ্রাম্য শহর ময়নাগুড়ি । প্রকৃতির অকৃপণ দানে নয়নাভিরাম সৌন্দর্যে ভরপুর এই অঞ্চল।সেইসঙ্গে এখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বেশ কিছু পৌরাণিক মন্দিরও। এগুলির মধ্যে উত্তরবঙ্গ বিখ্যাত একটি পৌরাণিক মন্দির হলো জল্পেশ ধাম। এটি ভগবান শিবের একটি রূপ জল্পেশর দেবের মন্দির ।বর্ষার সময় জুন থেকে অক্টোবর মাস পর্যন্ত এই শিবলিঙ্গ টি পবিত্র প্রাকৃতিক জলে ডুবে থাকে ।

এই শিবলিঙ্গ টি মাটির নিচে কতটা গভীর পর্যন্ত রয়েছে তা আজও অজানা। শোনা যায় ১৫২৪ সালে এই শিব মন্দির টি প্রথম স্থাপন করেন কোচ বংশধর বিশু সিংহ। পরবর্তীকালে ১৫৬৩ সালে তিনি মন্দিরটির আবার পুনঃনির্মাণ করেন।এর ১০০ বছর পর ১৬৬৩ সালে কোচ মহারাজা প্রাণ নারায়ান মন্দিরটির পুনরায় সংস্কার সাধন করেন ।এরপর এই মন্দিরটি বৈকুণ্ঠপুরের রাজা মাহিদেব রায়কতের অধিকারে আসে এবং তখন থেকে রায়কত বংশই এই মন্দিরটির রক্ষণাবেক্ষণ শুরু করে।

জল্পেশ মন্দির

১৮৯৯ সালে বৈকুণ্ঠপূরের তৎকালীন রাজা শ্রী যোগেন্দ্রদেব রয়কতের সুযোগ্য সহধর্মিণী রাণী জগদেশ্বরি দেবী এই মন্দিরটি পুনরায় সংস্কার করেন। বর্তমানে এই মন্দিরটি একটি ট্রাস্টের অধীনে রয়েছে। এই মন্দিরকে কেন্দ্র করে বেশ কয়েকটি মেলা বসে থাকে ।এগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল শ্রাবনিমেলা এবং শিবরাত্রির মেলা। প্রতিবছর এই মেলাগুলি উপলক্ষ্যে কয়েক লক্ষ পুণ্যার্থীর সমাগম ঘটে থাকে।এছাড়াও প্রায় সারাবছই দূরদূরান্ত থেকে প্রচুর ভক্তের সমাগম ঘটে এই মন্দির চত্বরে।

শংকল্পিতা বাগচী : ময়নাগুড়ি

Spread the love

 

Related Post

Leave a Comment